সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১ | ১২ মাঘ ১৪২৭

দক্ষিণ সুনামগঞ্জের গ্রামীণ সড়কে জ্বলছে সড়ক বাতি, গ্রামীণ ভুতুড়ে রাস্তা গুলো শহরের রাস্তায় পরিনত হয়েছে



প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণা অনুযায়ী গ্রাম হবে শহর এই ঘোষণা বাস্তবায়নে ত্রাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ের আওতায় পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এমপির প্রচেষ্ঠায় দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার সকল গ্রামীণ হাট বাজার ও গ্রামের ছোট বড় রাস্তা গুলোয় সন্ধ্যা নেমে আসলেই সড়ক বাতির আলোয় আলোকিত হচ্ছে। দৃষ্টিনন্দন সোলার সিস্টেমগুলো শোভা পাচ্ছে এলাকার গ্রামীণ জনপদের সড়কে, বাজারের মোড়ে ও গুরুত্বপূর্ণ জায়গায়। রাতের বেলায় সড়কবাতির আলোয় আলোকিত হচ্ছে উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকার জনপদ। যেন এক সময়ের ভুতুড়ে রাস্তা গুলো শহরের রাস্তায় পরিনত হয়েছে। অন্যদিকে এই সড়ক বাতির কারণে গ্রামে চোরি ডাকাতিও কমেছে বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা যায়, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার (কাবিটা) সাধারণ কর্মসূচির আওয়তায় ২য় পর্যায়, গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ (টিআর) সাধারণ কর্মসূচির আওয়তায় ২য় পর্যায় ও গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার (কাবিটা) বিশেষ কর্মসূচির আওয়তায় (পরিকল্পনামন্ত্রীর বিশেষ বরাদ্দ) নির্বাচনী এলাকা ভিত্তিক ২য় পর্যায় সোলার প্রকল্পের মাধ্যমে ৬৩ লক্ষ ৩৪ হাজার ৫৮০ টাকা ব্যয়ে উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে ১১২ টি সড়ক বাতি (স্ট্রীট লাইট) স্থাপন করা হয়েছে।

২০১৮-১৯ অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার (কাবিটা) সাধারণ কর্মসূচির আওয়তায় ২য় পর্যায় সোলার প্রকল্পের মাধ্যমে উপজেলার শিমুলবাক ইউনিয়নের সরদারপুর গ্রামের রাস্তায় ১ লক্ষ ১২ হাজার ৯৮০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ২টি সড়ক বাতি, শিমুলবাক বাজারে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি স্থাপন করা হয়েছে।

জয়কলস ইউনিয়নের ডুংরিয়া ঘরোয়া ঠাকুর বাড়ির সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, মির্জাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, তেঘরিয়া ডুংরিয়া রাস্তার মুখে সুবোধ মেম্বারের বাড়ির সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, ডুংরিয়া পুরান হাটির তিন রাস্তার মুখে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পরিষদের গেইটে ও ভিতরে ৩ লক্ষ ৯৫ হাজার ৪৩০টাকা ব্যয়ে ৭টি সড়ক বাতি স্থাপন করা হয়েছে।

পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নের শত্র“মর্দন গ্রামের পাল পাড়ার ব্রিজের সামনের রাস্তায় ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, জগন্নাথ জিউর আখড়ার সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি,রসুলপুর জামে মসজিদের সামনের রাস্তায় ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি স্থাপন করা হয়।

পূর্ব পাগলা ইউনিয়নের আলমপুর জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, পূর্ব পাগলা ইউনিয়ন পরিষদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি স্থাপন করা হয়।

দরগাপাশা ইউনিয়নের হলদারকান্দি গ্রামের উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, দরগাপাশা মোকাম বাড়ির সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, বীরকলস জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, বুড়–মপুর জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি লাগানো হয়েছে।

পূর্ব বীরগাঁও ইউনিয়নের বীরগাঁও বাজারে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, সুলতানগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, বীরগাঁও পশ্চিম পাড়া বাজারে ৫৩ হাজার ৩৩৮ টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি স্থাপন করা হয়েছে।

পশ্চিম বীরগাঁও ইউনিয়নের ঠাকুরভোগ জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, দুর্গাপুর জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, মৌখলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, শ্যামনগর আতাউরের দোকানের সামনের রাস্তায় ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি স্থাপন করা হয়।

পাথারিয়া ইউনিয়নের উত্তর গাজিনগর সঈদের দোকানের সামনের রাস্তায় ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, শ্রীনাথপুর আজাদের দোকানের সামনে গ্রামের রাস্তায় ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, পাথারিয়া গ্রামের রাজা মিয়ার বাড়ির সামনে গ্রামের রাস্তায় কবরস্থান পয়েন্টে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি স্থাপন করা হচ্ছে। এ প্রকল্পে মোট ১৮ লক্ষ ৬৪ হাজার ১৭০ টাকার স্ট্রীট লাইট স্থাপন করা হয়েছে।

অন্যদিকে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ (টিআর) সাধারণ কর্মসূচির আওয়তায় ২য় পর্যায় সোলার প্রকল্পের মাধ্যমে উপজেলার শিমুলবাক ইউনিয়নের কাঠালিয়া মোকাম বাড়ির মেইন সড়কে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, শিমুলবাক ইউনিয়ন পরিষদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি লাগানো হয়েছে।

জয়কলস ইউনিয়নের উজানীগাঁও বন্দের বাড়ির রাস্তায় ১ লক্ষ ৬৯ হাজার ৪৭০ টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ৩টি সড়ক বাতি, উপজেলা পরিষদ চত্বরে ২ লক্ষ ৮২ হাজার ৪৫০ টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ৫টি সড়ক বাতি স্থাপনের কাজ চলমান।

পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নের শত্র“মর্দন গ্রামের রাস্তায় ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, পশ্চিম পাগলা ইউনিয়ন ভ‚মি অফিসের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি স্থাপন করা হয়।

পূর্ব পাগলা ইউনিয়নের মনবেক পয়েন্টে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, পীঠাপসী ব্রীজের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি স্ট্রীট লাইট (সড়ক বাতি) স্থাপন করা হয়।

দরগাপাশা ইউনিয়নের বাংলা বাজারে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি,কাবিলাখাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি স্থাপন করা হয়।

পূর্ব বীরগাঁও ইউনিয়নের সলফ গ্রামের খেয়া ঘাটের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি,ধরমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি স্থাপন করা হচ্ছে।

পশ্চিম বীরগাঁও ইউনিয়নের উমেদনগর মাদ্রাসার সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, টাইলা পূর্ব পাড়া জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, জয়সিদ্দি ঈদগাহ’র পাশে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি লাগানো হয়।

পাথারিয়ায় ইউনিয়নের গনিগঞ্জ গ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা মাও. আব্দুল কাইয়ূমের বাড়ির সামনের পয়েন্টে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি, আসামমুড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি স্থাপন করা হয়। এ প্রকল্প থেকে মোট ১২ লক্ষ ৯৯ হাজার ২৭০ টাকার সড়ক বাতি লাগানো হয়।

 

এদিকে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার (কাবিটা) বিশেষ কর্মসূচির আওয়তায় (পরিকল্পনামন্ত্রীর বিশেষ বরাদ্দ) নির্বাচনী এলাকা ভিত্তিক ২য় পর্যায় সোলার প্রকল্পের মাধ্যমে উপজেলার শিমুলবাক ইউনিয়নের নুরপুর গ্রামের পয়েন্টে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, জীবদ্বারা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, আমরিয়া এফআইভিডিবি স্কুলের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, থলেরবন্দ ক্লিনিকের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, আক্তাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, মুরাদপুর গ্রামের উত্তরের জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, ভাটিপাড়া পয়েন্টে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি স্থাপনের কাজ চলছে।

জয়কলস ইউনিয়নের জামলাবাজ গ্রামের ব্রীজের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, ফতেপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, মানিকপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, আস্তমা বড় বাড়ি জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, কামরূপদলং মাদ্রাসার সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, শিবপুর পসচিম পাড়া ত্রাণের ব্রীজের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি স্থাপনের কাজ চলমান রয়েছে।

পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নের নবীনগর রাস্তার মুখে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, চন্দ্রপুর কোনা বাড়ির মসজিদের সামনের রাস্তায় ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, নিধনপুর কৃষ্ণথলার সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, ব্রাহ্মনগাঁও চৌধুরী পাড়ার রাস্তায় ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, ব্রাহ্মনগাঁও পুরানপাড়া রাস্তায় ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, শত্র“মর্দন রামকৃষ্ণ আখড়ার সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, শত্র“মর্দন পালপাড়া রাস্তায় ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি স্ট্রীট লাইট স্থাপন করা হবে।

পূর্ব পাগলা ইউনিয়নের ঘোড়াডুম্ভুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, ঘোড়াডুম্ভুর পশ্চিম পাড়া জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, বেতকোনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, পঞ্চগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, নাজিমপুর মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, মনবেগ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, পিঠাপসী নতুন জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি স্থাপনের কাজ চলছে।

দরগাপাশা ইউনিয়নের সিচনী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, দরগাপাশা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, ইসলামপুর পয়েন্টে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, দরগাপাশা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, দরগাপাশা মোকামবাড়ি জামে মসজিদের ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, পাইকাপন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, হরিনগর জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি স্থাপনের কাজ চলমান রয়েছে।

পশ্চিম বীরগাঁও ইউনিয়নের টাইলা মাদ্রসার সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, উপ্তিরপাড় জামে মসজিদের সামনের রাস্তায় ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, দুর্বাকান্দা জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, বসিয়াখাউড়ি জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, বড়মোহা জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, শ্যামনগর পশ্চিমের জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি লাগানোর কাজ চলমান রয়েছে।

পূর্ব বীরগাঁও ইউনিয়নের বীরগাঁও পশ্চিমের তিন রাস্তার মুখে শাহ আলমের বাড়ির সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, বীরগাঁও পশ্চিমের তিন রাস্তার মুখে আকলের বাড়ির সামনে সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, বাবনগাঁও জামে মসজিদের সামনে সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, বীরগাঁও জামাল উদ্দিনের বাড়ির সামনে সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, বীরগাঁও পশ্চিমপাড়া জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি লাগানোর কাজ চলছে।

পাথারিয়া ইউনিয়নের হাসারচর খেয়াঘাটের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, আন্দাবাজ খেয়াঘাটে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, নতুন জাহানপুর জামে মসজিদের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, নায়নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি, হরিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ১টি সড়ক বাতি স্থাপনের কাজ চলমান রয়েছে। এই বরাদ্দ থেকে উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে মোট ২৮ লক্ষ ৩২ হাজার ২০০টাকার সড়ক বাতি লাগানো হচ্ছে।

অপরদিকে উজানীগাঁও গ্রামের বীরমুক্তি যোদ্ধা গোলাম রাব্বানী মৎস্য খামারে সাবেক মহিলা সংসদ সদস্যা শামছুন নাহার বেগম শাহানা রাব্বানীর বরাদ্দ থেকে (কাবিটা প্রকল্প-৩) ৫৬ হাজার ৪৯০টাকা ব্যয়ে ৬০ ওয়াটের ৬ টি মোট ৩ লক্ষ ৩৮ হাজার ৯৪০টাকার সড়ক বাতি স্থাপন করা হয়।

পাথারিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আমিনুর রশিদ আমিন জানান, এই সোলার সিস্টেম সড়ক বাতি গ্রামীণ জনপথকে শহরে পরিনত করেছে। সন্ধ্যায় মনে হয় না এইটি গ্রামীণ জনপথ।

শিমুলবাক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান জিতু জানান, এক সময় সন্ধ্যা নেমে আসলে মানুষ ভয়ে ঘর থেকে বের হতো না। এখন সড়ক বাতির আলোয় গভীর রাতেও মানুষজন চলাফেরা করছেন নির্ভয়ে। আজ প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণা গ্রাম হবে শহর বাস্তবায়ন হচ্ছে।

পূর্ব বীরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুর কালাম জানান, আমার ইউনিয়নের বিভিন্ন সড়কে সড়ক বাতির কারণে রাতের বেলাও মানুষজন চলাফেরা করতে পারছে। সড়ক বাতির কারণে আগের তুলনায় এখন চোরি ডাকাতি অনেকটা কমে গেছে।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী আবুল কালাম এ প্রতিবেদককে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণা গ্রাম হবে শহর আজ বাস্তবায়ন হচ্ছে। গ্রামীণ জনপথে সন্ধ্যায় নেমে আসলে শহরের মতো আলোকিত হচ্ছে। সেই সাথে এই এলাকার কৃতি সন্তান হাওর রতœ পরিকল্পনামন্ত্রী আলহাজ্ব এম এ মান্নান দক্ষিণ সুনামগঞ্জ সহ সুনামগঞ্জ জেলার উন্নয়নে ব্যাপক ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। আমরা তাঁর সাথে উন্নয়নের স্বার্থে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করছি। দিনে দিনে এই হাওর এলাকা শহরে পরিনত হচ্ছে।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শাহাদাৎ হোসেন ভুঁইয়া জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী ও পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান স্যারের দিক নির্দেশনায় আমরা কাজ করে যাচ্ছি। এই এলাকার গ্রামীণ সড়ক ও সরকারি প্রতিষ্ঠান গুলোতে সড়ক বাতি লাগানো হচ্ছে। আগামীতে প্রচুর পরিমাণের এই সড়ক বাতি লাগানো হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা গ্রাম হবে শহর এই প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে দেশের কোন জায়গায় অন্ধকার থাকবে না।