সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১ | ১২ মাঘ ১৪২৭

নাইন্দা নদী ভমি অফিসার কর্তৃক খাস কালেকশনের মাধ্যমে ইজারা দেওয়ায় ফুঁসে উঠেছে এলাকাবাসী

দক্ষিণ সুনামগঞ্জের নাইন্দা নদী ইজারা বাতিল করে উন্মুক্ত রাখার জন্য মানববন্ধন করেছেন নদীর পাড়ের ৬ গ্রামবাসী



দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার জয়কলস ইউনিয়নের মহাসিনং নদীর শাখা নাইন্দা নদী (নাইন্দা খাল) উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভ‚মি) অফিসার কর্তৃক খাস কালেকশনের মাধ্যমে মাত্র ৫১১০ টাকার বিনিময়ে ইজার দেওয়ার প্রতিবাদে ফুঁসে উঠেছে নাইন্দার পাড়ের ৬ গ্রামের সাধারণ কৃষক ও জেলে পরিবারের লোকজন। ইজারা বাতিল করে উন্মুক্ত রাখার জন্য মানববন্ধন করেছেন নাইন্দার পাড়ের ৬ গ্রামবাসী।

বৃহ¯পতিবার বিকাল সাড়ে ৪টায় দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা সদরের শান্তিগঞ্জ বাজারের সিলেট-সুনামগঞ্জ মহা সড়কে নাইন্দার পাড়ের আস্তমা, কামরূপদলং, সদরপুর, পারবর্তীপুর, তালুকগাঁও ও সুলতানপুর গ্রামের প্রায় ২ শতাধিক জেলে ও কৃষক পরিবারের লোকজন ঘন্টা ব্যাপী মানববন্ধন করেন।

মানববন্ধনে সদরপুর গ্রামের হাজী সাইদুল ইসলামের সভাপতিত্বে, ফখরুল ইসলাম ফাহিম’র পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, সদরপুর গ্রামের উস্তার আলী, ওয়াহিদ আলী, আশকর আলী, মজনু মিয়া, নাছির উদ্দিন, জাকারিয়া, মনোয়ার, রুবেল আহমদ, শাহাব উদ্দিন, কামরূপদলং গ্রামের মো. মোসা মিয়া, আব্দুল কাহার, মাসুক মিয়া, আব্দুস ছুবহান, আবদাল মিয়া, আস্তমা গ্রামের ডা. মাও. আব্দুল ওয়াহিদ, আরজক আলী, ইউছুফ আলী, তালুকগাঁও গ্রামের এরাব আলী, ছমির উদ্দিন, আব্দুল­াহ মিয়া, আব্দুল মালিক, আব্দুল হান্নান, সিরাজ আলী, হুছন মিয়া, আব্দুল হেকিম, পারবর্তীপুর গ্রামের রহিদ আলী, কালা মিয়া, হবি, জাকারিয়া, তজম্মুল, পেসকার আলী, শাহাব উদ্দিন, সুলতানপুর গ্রামের আজমত আলী, ছোয়াব আলী, হারিস আলী, মতিন মিয়া, ছুরাব আলী সহ প্রমূখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, আমরা নাইন্দার পাড়ের কৃষক ও জেলে পরিবারের লোকজন এই নদীর পানি ব্যবহার করে কৃষি কাজ করি, সেই সাথে এলাকার জেলে ও সাধারণ গরীব পরিবারের লোকজন এই নদীতে ইছা (চিংড়ি) পুটি মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন।

তারা আরও বলেন, এমন একটি জায়গাও নেই যেখানে জেলেরা মাছ ধরের জীবিকা নির্বাহ করবে, প্রশাসন বা সরকার প্রতিটি হাওরের জলমহাল ইজারা দিয়ে সাধারণ মানুষের জীবিকা নির্বাহের পথ বন্ধ করে দিচ্ছে। এখন ছোট খাল গুলোও তারা ইজারা প্রদান করেছেন। এই ছোট নাইন্দা খালটি ইজারা হলে, একালার কৃষক ও জেলে পরিবারের লোকজন না খেয়ে থাকতে হবে। তাই অতি দ্রুত এই খালের খাস কালেকশন বাতিল করে জনস্বার্থে উন্মুক্ত রাখতে হবে। অন্যতায় আরো কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারিও প্রদান করেন এলাকাবাসী।

উলে­খ্য, গত ২২ সেপ্টেম্বর দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভ‚মি) অফিসের ৩১.৬০.৯০২৭.০৩.০০৬.১৪-১৯/৯০৩ নং স্মারকে এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জয়কলস ইউনিয়নের চেচার কোনা মৌজার নাইন্দা নদীর কামরূপদলং গ্রামের অংশের ৬ একর জলমহাল মাত্র ৫ হাজার ১১০ টাকার খাস কালেকশনের মাধ্যমে ইজারা প্রদান করেন, সহকারী কমিশনার (ভ‚মি) সৈয়দা শমসাদ বেগম।

এর পর ইজারা বাতিল করে নাইন্দা নদী উন্মুক্ত রাখার জন্য এলাকার কৃষক ও জেলে পরিবারের লোকজন ফুঁসে উঠে। গত ০৩ আক্টোবর এই নদী উন্মুক্ত রাখার জন্য এলাকাবাসীর পক্ষে হাজী সাইদুল ইসলাম দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরারবে আবেদন করেন। পরে ০৬ অক্টোবর জেলা প্রশাসক বরাবরের আবেদন করেন। অনুলিপি দিয়েছেন, পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এমপিকেও।

এরই প্রেক্ষিতে আজ ১০ অক্টোবর এলাকার ৬ গ্রামবাসী উপজেলা সদরের শান্তিগঞ্জ বাজারে ঘন্টা ব্যাপী মানববন্ধন করেছেন। ইজারা বাতিল না হলে আরও কঠোর আন্দোলনের হুমকিও দিয়েছেন তারা।