মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২১ | ৬ মাঘ ১৪২৭

জনপ্রতিনিধি হয়ে হয়নি চরিত্রের পরিবর্তন : ইউপি সদস্যের বাড়ীতে থেকে বিপুল পরিমান চোরাই রড উদ্ধার



মোঃ ফরিদুর রহমান কুঠি মিয়া। জনপ্রতিনিধি হয়েও করতে পারেননি নিজের চরিত্রের পরিবর্তন। এককালে ছিলেন মোটর সাইকেল চোর চক্রের আন্তঃ জেলা দলের সক্রিয় সদস্য।

জানা যায়, বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দরগাপাশা ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের সর্বস্থরের জনগণ বিপুল ভোটে নির্বাচিত করে ভাল মানুষ হওয়ার সুযোগ করে দিয়েছিলেন। সেই সুযোগ এখন গোড়ে বালি। ইউপি সদস্য সদস্য ফরিদুর রহমান কুঠি দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানায় চুরির ঘটনায় দায়েরী মামলায় বর্তমানে জেল হাজতে আছেন। জগন্নাথপুর-ডাবর আঞ্চলিক সড়কের দরগাপাশা এলাকায় সরকারি নির্মানাধীন ব্রীজের বিপুল পরিমান রড চুরি করে নিজ হেফাজতে রেখে মাঝে মধ্যে রাতের আধারে বিক্রি করতে গিয়ে ২ দিন আগে গত বৃহস্পতিবার(১৪ নভেম্বর) দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা পুলিশ ইউপি সদস্য  ফরিদুর রহমান কুঠি ও তার সহযোগী সিএনজি গাড়ী চালাককে গ্রেফতার করা হয়।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রবিবার(১৭ নভেম্বর) দিনব্যাপী  দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা পুলিশের সাব-ইন্সপেক্টর মো. জয়নাল আবেদীনের নেতৃত্বে ও এএসআই প্রনয় নালের সহযোগিতায় সঙ্গীয় ফোর্সের উপস্থিতিতে (১৭ নভেম্বার) রবিবার দিনব্যাপী দরগাপাশা সাকিনে ইউপি সদস্য ফরিদুর রহমান কুঠির বসত বাড়ীর আশপাশের ৫টি ডোবা থেকে বিপুল পরিমান রড অনুমান ৩ টন উদ্ধার করে থানা পুলিশ। ইতিপূর্বে এই ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে ইউনিয়ন পরিষদের বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা সহ কর্মসৃজন প্রকল্পের কাজের অনিয়ম সহ বিস্তর অভিযোগ রয়েছে স্থানীয় ওয়ার্ড বাসীর।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, পাগলা-জগন্নাথপুর-আউসকান্দি সড়কের বিভিন্ন ব্রীজের  কাজ চলমান। অধিকাংশ ব্রীজের ও রাস্তার কাজ এমএম বিল্ডার্স নামের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নিমার্ণ কাজ বাস্তবায়ন করছেন। দরগাপাশা ইউনিয়ন পরিষদের পাশেই আব্দুর রশিদ উচ্চ বিদ্যালরে দক্ষিণ পাশে এই সড়কের একটি ব্রিজ নিমার্ণ করছেন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। এই ব্রিজের কাজে ব্যবহৃত রড নির্মাণ এলাকা থেকে বিভিন্ন সময়ে চুরি করে আসছিল ইউপি সদস্য ফরিদুল ইসলাম কুটি ও তার সহযোগীরা। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের লোকজন প্রমাণের অভাবে ধরতে পারেননি চোর চক্রের  সদস্যদের। এব্যাপারে  এমএম বিল্ডার্স নামক ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। উক্ত সাধারণ ডায়রীর সূত্রধরে থানা পুলিশ ইউপি সদস্য ফরিদুল ইসলাম কুটিকে নজরদারীতে রাখেন।

ইউপি সদস্য  ফরিদুর রহমান কুঠি ও তার সহযোগী সিএনজি গাড়ী চালাককে গ্রেফতারের পর এমএম বিল্ডার্সর হিসাব রক্ষক জামাল আহমদ বাদী হয়ে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানায় একটি চুরির মামলা করেন। যাহার মামলা নং-১০, তারিখ-১৪.১১.২০১৯ইং।

এ ব্যাপারে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা এসআই জয়নাল আবেদীন জানান, দীর্ঘ দিন যাবৎ ইউপি সদস্য ফরিদুর রহমান কুঠি মিয়া ও তার সহযোগীরা সরকারি নির্মানাধীন স্থানার মালামাল চুরি করে আসছিল। তার বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ ছিল। আমরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাঁকে চোরাই যাওয়া মালামাল সহ আটক করেছি এবং তার বসত বাড়ীর চারপাশে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমান চুরি যাওয়া রড উদ্ধার করেছি।

দারগাপাশা ইউনিয়ন পরিশদের চেয়ারম্যান মনির উদ্দিন জানান, ইউপি সদস্য ফরিদুর রহমান কুঠির বিরুদ্ধে আগেও বিস্তর অভিযোগ ছিল। তার ওয়ার্ডেও মানুষ তাঁকে ভাল মানুষ হওয়ার জন্য ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছিল। কিন্তু এর পর থেকে সে চুরি পেশা থেকে চরিত্রের পরিবর্তন করতে পারে নাই।  পুলিশ প্রশাসনের কাছে আমার অনুরোধ এই ইউনিয়নের আরও যারা চুরি পেশা জড়িত তাদেরকে খোঁজে বের করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হউক।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার অফিসার ইনর্চাজ মো. হারুনুর রশিদ চৌধুরী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, আসামীকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়ে।